টিকিটের জন্য স্টেশনে রাত যাপন

0

train1436497712

 

প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদের অনন্দ ভাগাভাগি করতে দ্বিতীয় দিনের মতো অগ্রিম টিকিট নিতে রাত থেকে কমলাপুর স্টেশনে লাইনে দাঁড়িয়েছেন শত শত মানুষ। কাউন্টারগুলোর সামনে তিল ধারনের ঠাঁই নেই।

 

শুক্রবার দ্বিতীয় দিন ১৪ জুলাইয়ের অগ্রিম টিকিট দেওয়া হচ্ছে। এভাবে আরো তিন দিন অগ্রিম টিকিট দেওয়া হবে। ১৩ জুলাই পর্যন্ত অগ্রিম টিকিট দেওয়া হবে। যা ছেড়ে যাবে ১৪ থেকে ১৭ জুলাই পর্যন্ত। আর ফিরতি টিকিট বিক্রি করা হবে ২০ থেকে ২৪ জুলাই পর্যন্ত।

 

অন্যান্য দিনের মতো আজকেও লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিটের অপেক্ষা করছেন শত শত মানুষ। অনেকে গতকাল রাত থেকে দাঁড়িয়েছে লাইনে। অপেক্ষায় আছেন টিকিটের জন্য।

 

গাজীপুর থেকে গতকাল রাতে এসে দাঁড়িয়েছেন শেখ ফরিদ। তিনি যাবেন জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে। তিনি রাইজিংবিডিকে বলেন, অপেক্ষা করছি টিকিটের জন্য, যদি টিকিট পাই তাহলে রাত জেগে যে কষ্ট করেছি তা ভুলে যাবো। কষ্ট আর কষ্ট মনে হবে না।

 

নারায়ণগঞ্জের আরেকজন যাত্রী মো. ওমর ফারুক। তিনি জামালপুরের ইসলামপুর যাবেন। তিনিও রাত জেগে লাইনে দাঁড়িয়ে। তিনি বলেন, প্রিয়জনের স্বান্নিধ্যের জন্য এই কষ্ট। কষ্ট করে শেষ পর্যন্ত বাড়ি পৌঁছতে পারলেই হয় আর কিছু চাই না।

 

রংপুরের যাবেন আমির হোসেন। তিনিও টিকিটের জন্য সেহরি খেয়ে লাইনে দাঁড়িয়েছেন টিকিটের আশায়। এমন আরো শত শত মানুষ টিকিটের জন্য লাইনে দাঁড়িয়েছেন।

 

উল্লেখ্য, প্রতিদিন আসন সংখ্যা ১৪ হাজার ৫১২ টি। ই-টিকিটের জন্য রয়েছে ২৫ শতাংশ অর্থাৎ ৩ হাজার ২৭৯ টি। স্টাফ এবং ভিআইপিদের জন্য রয়েছে ৫ শতাংশ করে অর্থাৎ ১ হাজার ৬৬টি। আর সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে ৯ হাজার ৩৫ টি টিকিট।

Comments

comments

Menu

Koreabashi