সঙ্গীত থেকে বিদায় নিলেন কোরিয়ান পপতারকা জাং জুন-ইয়ং

0

Kpoppw

যৌন কেলেঙ্কারি: গোপন সেক্স ভিডিওর দায়ে সঙ্গীত থেকে বিদায় নিলেন কোরিয়ান পপতারকা জাং জুন-ইয়ং

 

“আমি আমার সমস্ত অপরাধ স্বীকার করছি,” এক বিবৃতিতে বলেন জাং জুন ইয়ং। সেইসাথে টেলিভিশনে এবং সঙ্গিতাঙ্গনে নিজের যত কাজ আছে সব সরিয়ে নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।

 

কে-পপ সুপারস্টার বিগ ব্যাং ব্যান্ডের গায়ক সিউংরি যৌন লেনদেন (সেক্স ব্রাইবেরি) এর ঘটনায় অভিযুক্ত হয়ে ইন্ডাস্ট্রি ছাড়ার একদিন পরেই এই খবর এলো।

 

এর মধ্য দিয়ে কে-পপ এর ওপর যৌন কেলেঙ্কারির বড় রকমের ছায়া পড়তে শুরু করেছে । কে-পপ হল মূলত কোরিয়ান পপ সঙ্গীতের ডাক নাম, যার শুরু দক্ষিণ কোরিয়ায়। সউলের মেট্রোপলিটন পুলিশের কাছে বৃহস্পতিবার জেরার মুখে পড়তে হবে জাংকে। যদিও তিনি মঙ্গলবার স্বীকার করে একটি বিবৃতি দিয়েছেন এবং বলেছেন, “আমি সেই মেয়েদের অগোচরে ভিডিও করেছি এবং চ্যাটরুমে তা শেয়ার করেছি, এবং যখন কাজটি করেছি কোন ধরনের অপরাধবোধ কাজ করেনি”।

 

দক্ষিণ কোরিয়ার ব্রডকাস্টার এসবিএস অভিযোগ প্রকাশ করে যে, জাং নিজের যৌন মিলনের দৃশ্য নিজেই ভিডিও করেছেন গোপনে এবং সঙ্গীদের কোনরকম অনুমতি ছাড়াই। ২০১৫-১৬ সাল সময়কালে সেসব শেয়ার করেছেন মোবাইল চ্যাট গ্রুপে।

এ ঘটনায় তিনি তার ‘ক্ষুব্ধ’ ভক্তদের কাছে এবং যেসমস্ত নারীদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা লঙ্ঘন করেছেন তাদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন।

 

“বাকি জীবনভর আমি আমার অনৈতিক ও অবৈধ কাজগুলো যা অপরাধযোগ্য তার জন্য অনুতপ্ত থাকবো,” বলেছেন তিনি।

তিনি আরও বলেছেন, “বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হতে যাওয়া পুলিশের তদন্ত কাজে আমি বিশ্বস্ততার সাথে সহযোগিতা করবো এবং আমার জন্য যে শাস্তিই নির্ধারিত হোক না কেন আমি তা নিঃসঙ্কোচে মেনে নেবো।”

 

অগোচরে যৌন মিলনের ভিডিও ধারণের অভিযোগ তার বিরুদ্ধে এটাই প্রথমবার নয়। ২০১৬ সালে তার প্রাক্তন এক বান্ধবী এই অভিযোগ এনেছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত তা প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন।

 

সুপরিচিত এই গায়ক-গীতিকার অবশ্য ওই অভিযোগ নাকচ করে দাবি করেছিলেন, তার বান্ধবীর অনুমতি নিয়েই তা ভিডিও করা হয়েছিল।

 

এই খবরগুলো আসছে এমন এক সময় যখন দক্ষিণ কোরিয়াতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে গোপন ক্যামেরায় আপত্তিকর ছবি বা ভিডিও ধারণ করে তা গোপনে আপলোড করার ঘটনা ‘মহামারী’ রূপ নিয়েছে। বিশেষ করে টয়লেট এবং পোশাক বদলানোর কক্ষে তা বেশি ঘটছে। এসব ভিডিও অনলাইনে ছড়িয়ে পড়ছে কিন্তু ভুক্তভোগী নারীদের হয়তো কোনও ধারণাই নেই। দক্ষিণ কোরিয়াতে কেবল ২০১৭ সালেই ‘স্পাই ক্যাম পর্ণ’-এর ৬,০০০ টি ঘটনা ঘটেছে ।

Comments

comments

Menu

Koreabashi