সংস্কৃতিমন্ত্রীর সাথে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

0

wq

 

সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের সাথে আজ সচিবালয়ে তার অফিস কক্ষে বাংলাদেশে নিযুক্ত দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত অহন সেওং-দু সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব আক্তারী মমতাজ, অতিরিক্ত সচিব মাহমুদা আখতার মীনা ও সংস্কৃতি উপদেষ্টা (উপসচিব) মো. মফিদুর রহমান এ সময় উপস্থিত ছিলেন। সাক্ষাৎকালে মন্ত্রী বলেন, দক্ষিণ কোরিয়া বাংলাদেশের ঘনিষ্ঠ বন্ধুরাষ্ট্র। ব্যবসা, বাণিজ্য, অবকাঠামো, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, সংস্কৃতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরে দু’দেশ পরস্পরের সাথে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এ সম্পর্কের ধারাবাহিকতায় দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতার ক্ষেত্র আরো বিস্তৃত হবে বলে তিনি আশা করেন। তিনি বলেন, ১৯৭৯ সাল থেকে দেশ দু’টির মধ্যে সাংস্কৃতিক চুক্তি বিদ্যমান। এরই ধারাবাহিকতায় বিগত সময়ে দুটি মেয়াদে সাংস্কৃতিক বিনিময় কার্যক্রম চালু হয়। চুক্তি দু’টির মেয়াদ শেষ হওয়ায় তা পুনরায় চালু করার ব্যাপারে তিনি রাষ্ট্রদূতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

 

তিনি আশা প্রকাশ করেন, এটি চালু হলে দু’দেশের সাংস্কৃতিক যোগাযোগ আরও দৃঢ় হবে। নতুন মেয়াদে সাংস্কৃতিক বিনিময় কার্যক্রম চালুর ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে রাষ্ট্রদূত বলেন, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। রাষ্ট্রদূত ২২-২৪ জুন ২০১৬ দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য ৭ম এশিয়া ইউরোপ সংস্কৃতিমন্ত্রীদের সম্মেলনে অংশগ্রহণের জন্য সংস্কৃতি মন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান। পাশাপাশি সেখানে অবস্থিত কোরীয় লোক শিল্প জাদুঘর এবং লোক গ্রাম পরিদর্শনের ব্যাপারেও তিনি মন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান । মন্ত্রী এসব বিষয়ে তাঁর সম্মতি প্রদান করেন। দক্ষিণ কোরিয়ায় অবস্থিত এশীয়া সাস্কৃতিক কেন্দ্রকে পৃথিবীর অন্যতম বৃহৎ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র হিসেবে উল্লেখ করে এ সময় মন্ত্রী বলেন, দক্ষিণ কোরিয়া শিল্প-সংস্কৃতির দিক থেকে অনেক উন্নত। বাংলাদেশেরও রয়েছে গর্ব করার মতো সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। এদেশের আবহমান সংস্কৃতিকে কোরিয়ার জনগণের কাছে তুলে ধরার জন্য এই কেন্দ্রে একটি স্থায়ী কর্ণার পাওয়ার ব্যাপারে তিনি রাষ্ট্রদূতের কাছে প্রস্তাব করেন। রাষ্ট্রদূত এসময় মন্ত্রীকে জানান যথাযথ প্রস্তাব পেলে বিষয়টি তাঁর দেশের সরকারের কাছে উপস্থাপন করা হবে।

 

রাষ্ট্রদূত বলেন, কোরিয়ায় হিপ-হপ গান খুব জনপ্রিয়। এ সঙ্গীত নিয়ে কোরিয়াতে একটি বড় আয়োজন করা হবে। বাংলাদেশ থেকেও কিছু তরুণ শিল্পীকে সেখানে আমন্ত্রন জানানো হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সে লক্ষ্যে জুনে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। সেখানে নির্বাচিত শিল্পীগণ কোরিয়ায় যাওয়ার সুযোগ পাবে বলে তিনি মন্ত্রীকে জানান। জুলাইয়ে বাংলাদেশে কোরিয়ান ও ওয়েস্টার্ন সঙ্গীত নিয়ে একটি অনুষ্ঠান আয়োজনের ব্যাপারে তিনি আগ্রহ দেখান এবং এ বিষয়ে সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন। মন্ত্রী রাষ্ট্রদূতকে উল্লিখিত সব বিষয়ে সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন।

Comments

comments

Comments

comments

Menu

Koreabashi