অবৈধ/মেয়াদ উর্ত্তীণ অভিবাসীদের স্বেচ্ছায় প্রত্যাবর্তনের সুয়োগ এর মেয়াদ ৩১শে ডিসেম্বর ২০১৬ পর্যন্ত বর্ধিত

0

【인천공항=뉴시스】최동준 기자 = 27일 오전 인천공항 입국심사장에서 입국 외국인들을 대상으로 지문 및 얼굴 확인을 실시하고 있다. 이번 제도는 오는 1월 1일부터 우리나라에 입국하는 17세 이상의 모든 외국인을 대상으로 시행할 예정이다.   photocdj@newsis.com

 

কোরিয়ায় বসবাসরত অবৈধ/মেয়াদ উর্ত্তীণ অভিবাসীদের দেশে স্বেচ্ছায়ফেরত যাওয়ার বিষয়টি উৎসাহিত করার উদ্দেশ্যে ০৬সাসের জন্য সাধারন ক্ষমা ও বিশেষ সুবিধা দেয়ার ঘোষনা করা হয়েছিল বিচার মন্ত্রণালয় থেকে (কোরিয়া ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ এটি কার্যকর করছে) এবং এর সময় সীমাছিল ০১ এপিল ২০১৬ থেকে ৩০সেপ্টেম্বর ২০১৬ (৬মাস)। কোরিয় কর্তৃপক্ষ, সিউলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস, কোরিয়ায় প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশী সামাজিক সংগঠনসমূহ, অনলাইন মিডিয়া এবং সচেতন কোরিয়া প্রবাসী বাংলাদেশী নাগরিকগণ বিষয়টি প্রচার করে আসছে।

অধিক সংখ্যাক অবৈধ/মেয়াদ উর্ত্তীণ অভিবাসীর স্বেচ্ছায় প্রত্যাবর্তনের সুয়োগ নেয়ার প্রবণতায় (বাংলাদেশীদের সংখ্যা খুব বেশী আশাব্যঞ্জক নয়) উংসাহিত হয়ে কোরিয়া বিচার মন্ত্রণালয় এ সুযোগটি ৩১শে ডিসেম্বর ২০১৬পর্যন্ত বর্ধিত করেছে। কোরিয়ায় বসবাসরত অবৈধ/মেয়াদউর্ত্তীণ বাংলাদেশী অভিবাসীদের এ সুযোগ গ্রহণ করে বৈধভাবে পুনরায় কোরিয়ায় প্রবেশকরার/প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সুযোগ নেয়ার জন্য আবারো অনুরোধ করা হলো।

এ সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্যাদি নিন্মরুপ:

সময় :
২০১৬ সালের ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত

 

স্থান (যেখানে রিপোর্ট করতে হবে) :

সকল বিমান বন্দরের ইমিগ্রেশন অফিস (মূলত :ইনচনওকীমহে)।

 

স্বেচ্ছায় প্রত্যাবর্তন করার ক্ষেত্রে ঘোষিত সুবিধাসমূহ:

১।পুনরায় কোরিয়া আসার উপর কোন সময় সীমার নিষেধাজ্ঞা থাকবে না। (আগে ২বছরের মধ্যে ঢুকতে পারবে না এমন নিয়ম ছিল)
২।অবৈধ অভিবাসী এবং তাদের নিয়োগ কর্তা কাউকেই শাস্তির আওতায় আনা হবে না।
৩।আটক হওয়া ছাড়াই মুক্ত ভাবে দেশে ফেরত যাওয়া যাবে।
৪।স্বস্বদেশে অবস্থিত কোরীয় দূতাবাস থেকেভিসা নিয়ে আবার কোরিয়ায় প্রবেশ করা যাবে।

 

স্বেচ্ছায় প্রত্যাবর্তন করার এই বিশেষ সুবিধাগ্রহন না করে আটক হলে:

১।আটকৃতদের অবিলম্বে দেশে ফেরত পাঠানো হবে এবং পরবর্তী ৫বছর কোরিয়া ফিরতে পারবে না (অবৈধ ভাবে অবস্থান কাল যাই হউক না কেন) ।
২।অপরাধের জন্য বর্ধিতশাস্তিও বর্ধিত জরিমানা পরিশোধ করতে হবে।
স্বেচ্ছায় প্রত্যাবর্তন করার জন্য যা যা করতে হবে :

১।বিমানের টিকিট এবং বৈধপাসপোর্ট/ভ্রমন ডকুমেন্টসহ স্বেচ্ছায় প্রত্যাবর্তন এর বিষয়টি দেশে প্রত্যাবর্তনের দিন সংশ্লিষ্ট ইমিগ্রেশন অফিসে (বিমানবন্দরে) রিপোর্ট করতে হবে।
২।পাসপোর্টে যদি তথ্যগত বিভ্রান্তি থাকে বা কেউ অবৈধ পথে কোরিয়া প্রবেশ করে থাকলে ,ইমিগ্রেশন এর তথ্য যাচাই করতে বেশি সময় প্রয়োজন বিধায় এয়ার টিকিট করার আগে সংশ্লিষ্ট ইমিগ্রেশন অফিস থেকে বিভিন্ন কাগজ পত্র যাচাই করে নিতে হবে।

 

বিস্তারিত জানতে: ১৩৪৫ অথবা বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন অফিসে ফোন করুন।

ইনচন: ০৩২-৭৪০-৭৩৯১ কীমহে:০৫১-৯৭৯-১৩০০

Comments

comments

Menu

Koreabashi